২০২০ খ্রিষ্টব্দের এইচএসসির ফলের ভিত্তিতে ১০ হাজার ৫০১ জন শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে সরকার। এদের মধ্যে এক হাজার ১২৫ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও নয় হাজার ৩৭৬ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি দেয়া হবে। ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি উত্তীর্ণদের মেধা ও সাধারণ বৃত্তি দিতে বোর্ড ভিত্তিক কোটা বণ্টন করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।

আগামী ২২ এপ্রিলের মধ্যে বৃত্তির গেজেট প্রকাশ করতে বলা হয়েছে নয়টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডকে। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে  বোর্ডগুলোতে পাঠানো এক আদেশে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের এইচএসসি উত্তীর্ণ ঢাকা বোর্ডের ৪২৭ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও দুই হাজার সাতশত শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি দেয়া হবে। এছাড়া ময়মনসিংহ বোর্ডের ৭২ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও ৬৫৯ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি, রাজশাহী বোর্ডের ১৯৪ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও এক হাজার ২৬২ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি, কুমিল্লা বোর্ডের ৬৯ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও ৮৯৬ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি এবং সিলেট বোর্ডের ৩১ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও ৫৯২ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি দেয়া হবে।

এছাড়া বরিশাল বোর্ডের ৪১ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও ৫৭০ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি, যশোর বোর্ডের ৯৪ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও এক হাজার ২ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি, চট্টগ্রাম বোর্ডের ৮৬ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও ৭২৯ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি এবং দিনাজপুর বোর্ডের ১১১ শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি ও ৯৬৬ শিক্ষার্থীকে সাধারণ বৃত্তি দেয়া হবে। এভাবেই বৃত্তি কোটা বণ্টন করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।

জানা গেছে, এইচএসসিতে মেধাবৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের মাসিক ৮২৫ টাকা ও বছরে এককালীন এক হাজার ৮০০ টাকা দেয়া হবে। আর সাধারণ বৃত্তিপ্রাপ্তদের মাসে ৩৭৫ টাকা এবং বছরে এককালীন ৭৫০ টাকা দেয়া হবে। বৃত্তির টাকা ২০২০-২০২১ অর্থবছরে রাজস্ব বাজেটের বৃত্তি-মেধা বৃত্তি খাত থেকে নির্বাহ করা হবে। 

জিটুপি পদ্ধতিতে ইএফটির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বৃত্তির টাকা পাঠানো হবে। আগামী ২২ এপ্রিলের মধ্যে বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের তালিকাসহ গেজেট প্রকাশ করতে ৯টি সাধারণ ধারার শিক্ষা বোর্ডকে বলেছে শিক্ষা অধিদপ্তর। গেজেট প্রকাশের ৭ দিনের মধ্যে বৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলো তার তথ্য ভর্তিকৃত প্রতিষ্ঠানে জমা দিতে হবে।