কোভিট-১৯ (করোনাভাইরাস) এর নতুন ঢেউ প্রতিরোধে রাজধানী ব্যাংককের সকল স্কুল বন্ধ ঘোষণা করেছে থাই সরকার। এ জন্য বর্ষবরণ উপলক্ষে দেয়া ছুটির সঙ্গে আরো ২ সপ্তাহ অতিরিক্ত যুক্ত করা হয়েছে। দেশটি দীর্ঘদিন করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলেও সম্প্রতি আবারো দ্রুত বাড়তে শুরু করেছে শনাক্তের সংখ্যা। ফলে নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করতে যাচ্ছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটি। এ খবর দিয়েছে চ্যানেল নিউজ এশিয়া।

খবরে আরও বলা হয়েছে, দেশটিতে শুক্রবার ২ শত ৭৯ জন নতুন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। ব্যাংককের দক্ষিণাংশে থাকা অভিবাসী শ্রমিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পরা করোনাই এখন দেশটিতে ভাইরাসটির নতুন ঢেউ সৃষ্টি করেছে। দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ রায়োঙ্গেও আরেকটি ক্লাস্টার শনাক্ত হয়েছে। ফলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করেছে ব্যাংকক কর্তৃপক্ষ।

এ নিয়ে ব্যাংকক মেট্রোপলিটন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আমরা শিক্ষার্থী এবং সেবাখাতের সঙ্গে যুক্তদের করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করেছি। এরভিত্তিতে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, শহরের বিভিন্ন স্থান বন্ধ করে দেয়া হবে। স্কুল ছাড়াও সকল ডেকেয়ার, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, প্রি-স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আগামি ৪ জানুয়ারি থেকে ১৭ জানুয়ারি পর্যন্ত এসব প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

থাইল্যান্ডে এখন পর্যন্ত মোট করোনা শনাক্ত হয়েছেন ৭ হাজার ১৬৩ জন। এরমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন ৬৩ জন।