নাটোর শহরের মাদরাসা মোড় মিল্লাত হোটেল থেকে আনোয়ার হোসেন নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ সন্ধায় তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। মৃত ব্যক্তির পাশ থেকে একটি সুইসাইড নোট এবং যোগাযোগের জন্য তিনটি মোবাইল নম্বর উদ্ধার করা হয়েছে। আনোয়ার হোসেন -৪৮ বগুড়া জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলা সদরের ৮নং ওয়ার্ডের এজাতুল্লার ছেলে ।

পুলিশ ও হোটেল সুত্রে জানা যায়, শনিবার রাত ১১টার দিকে আনোয়ার হোসেন হোটেল মিল্লাতে উঠে। এরপর আজ বিকালে কোন এক সময় তিনি ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে রসি লাগিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। সংবাদ পেয়ে সন্ধা ৭টার দিকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করে। এসময় ওই ঘর থেকে একটি সুই সাইড নোট উদ্ধার করা হয়।

নোটে লেখা ছিল আমি যে কোন সময় মারা যেতে পারি। আমার মৃত্যুর পরে এই তিনটি মোবাইল উল্লেখিত এই তিনটি মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন। পুলিশের একটি সুত্র জানায়, মৃত ব্যক্তির উল্লেখিত নম্বরে যোগাযোগ করে জানা গেছে তিনি বেশ কিছুদিন ধরে মানসিক হতাশায় ভুগছিলেন্। অনেকে তার কাছে টাকা পয়সা পেত। একারণে তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন।

এ বিষয়ে নাটোর থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, লাশ উদ্ধার নাটোর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। এছাড়া তার পরিবারকে সংবাদ দেওয়া হয়েছে। তবে এখনো কোন মামলা দায়ের করা হয়নি।